×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১২ মে ২০২১ ই-পেপার

পান্ডুয়ায় উন্নয়নের খতিয়ান দিতে গিয়েছিলেন কল্যাণ, শুনতে হল অভিযোগ

নিজস্ব সংবাদদাতা
পান্ডুয়া ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৬:০০
জনসংযোগে গিয়ে অভিযোগ শুনতে হল কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়।

জনসংযোগে গিয়ে অভিযোগ শুনতে হল কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়।
নিজস্ব চিত্র।

রাজ্য সরকার গত ১০ বছরে কী কী উন্নয়নমূলক কাজ করেছে, তা তুলে ধরতে জনস‌ংযোগে বেরিয়েছিলেন সাংসদ কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়। বুধবার তিনি গিয়েছিলেন হুগলি জেলার পান্ডুয়ার সিমলাগড়ের চাঁপাহাটি কলোনিতে। সেখানে গিয়ে তাঁকে শুনতে হল, জল নেই, রাস্তা নেই, ক্ষতিপূরণ পাওয়া যায়নি— এ রকম একাধিক অভিযোগ।

বুধবার শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় চাঁপাহাটি কলোনিতে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সরকারের ১০ বছরের কাজের খতিয়ান তুলে ধরেন। ‘স্বাস্থ্যসাথী’, ‘রূপশ্রী’, ‘কন্যাশ্রী’, ‘জব কার্ড’-সহ বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা এলাকার মানুষ পাচ্ছেন কি না তার খোঁজ নেন। তখনই সেখানকার বাসিন্দারা সাংসদকে জানান পানীয় জলের কষ্টের কথা। কলোনির ভিতরের রাস্তা দীর্ঘদিন ধরে খারাপ হয়ে থাকার অভিযোগও করেন কেউ কেউ। ওই এলাকার কয়েক জন ছাত্রী অভিযোগ করেন, অনেক জায়গায় আবেদন করেও কোনও চাকরি মেলেনি তাঁদের। সেখানকার বাসিন্দা রিঙ্কু দে সাংসদকে বলেছেন, ‘‘আমার ঘর নেই। আমপানের কোনও ক্ষতিপূরণও পাইনি।’’

এ কথা শুনে, কেন ঘর নেই তা স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বকে জিজ্ঞাসা করেন কল্যাণ। এসইসিসি (সোশিও ইকনমিক কাস্ট সেনসাস) তালিকায় তাঁদের নাম না থাকায় সাহায্য দেওয়া যায়নি বলে জানান তৃণমূল নেতৃত্ব। তা শুনে সাংসদ বলেছেন, ‘‘কেন্দ্র সরকার এই তালিকা তৈরি করেছে। বিজেপি-র জন্যই গরিব মানুষ বঞ্চিত।’’ পান্ডুয়া ব্লকে এই তালিকায় যাঁদের নাম নেই, ভোট মিটে গেলে তাঁদের সাহায্যের ব্যবস্থা করা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন তৃণমূলের এই সাংসদ। রাস্তার কাজ শুরু হয়েছে। পানীয় জলেরও ব্যবস্থা করা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। এ নিয়ে পান্ডুয়ার বিজেপি নেতা অশোক দত্ত বলেছেন, ‘‘১০ বছর কিছুই করেননি স্থানীয় তৃনমূল নেতারা। পঞ্চায়েত থেকে সবাই লুটেপুটে খেয়েছে। তাই ভোটের আগে শ্রীরামপুরের সাংসদকে এসে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিতে হচ্ছে।’’

Advertisement
Advertisement