আন্তর্জাতিক মহলে আরও কোণঠাসা হয়ে পড়ল পাকিস্তান।  ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (এফএটিএফ) জানিয়ে দিল আপাতত পাকিস্তানকে সরানো হচ্ছে না তাদের ধূসর তালিকা (গ্রে লিস্ট) থেকে। সেই সঙ্গে ইমরান খানের দেশকে চরম হুঁশিয়ারিও দিয়েছে তারা। সূত্রের খবর, অক্টোবরের মধ্যে সন্ত্রাসবাদ নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করতে না পারলে কালো তালিকভুক্ত করা হতে পারে পাকিস্তানকে।

এফএটিএফ হল একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা। সন্ত্রাসে কারা অর্থ জোগান দিচ্ছে তা নজর রাখা এবং সেই জোগান রুখে দেওয়াই এই সংস্থার কাজ।  এফএটিএফ-এর সদস্য দেশের সংখ্যা ৩৮। প্যারিসে এফএটিএফ-এর বৈঠক চলছে। সেই বৈঠকেই স্থির হয় এ বছরের অক্টোবর পর্যন্ত তাদের ধূসর তালিকাতেই থাকবে পাকিস্তান। সন্ত্রাসে অর্থ জোগান বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করবে তারা। সূত্রের খবর, এমনই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল পাকিস্তান। আগামী জুন এবং অক্টোবরে সেটা খতিয়ে দেখা হবে কী পদক্ষেপ করেছে ইমরানের দেশ। যদি সেই লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হয়, তা হলে আরও বিপদে পড়তে হতে পারে তাদের, এমনই ইঙ্গিত দিয়েছে এফএটিএফ। এক বিবৃতি জারি করে এফএটিএফ জানিয়েছে, “২০১৯-এর মে-র মধ্যে পাকিস্তানকে তার অ্যাকশন প্ল্যান শেষ করতেই হবে।”   

পুলওয়ামা হামলার পর ভারত আর্জি জানিয়েছিল পাকিস্তানকে যেন কালো তালিকাভুক্ত করা হয়। এফএটিএফ-এর কালো তালিকাভুক্ত হওয়া মানে আন্তর্জাতিক অর্থভাণ্ডার, বিশ্ব ব্যাঙ্ক, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্ক এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থনৈতিক  সংস্থাগুলো থেকে সহযোগিতার রাস্তা প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়া। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুক্রবার এফএটিএফ-এর এই ঘোষণায় অর্থনৈতিক ভাবে আরও বিপাকে পড়ল পাকিস্তান। ইতিমধ্যেই পাকিস্তানের কাছে থেকে মোস্ট ফেভারড নেশন-এর মর্যাদা কেড়ে নিয়েছে ভারত। সে দেশ থেকে আমদানিকৃত দ্রব্যের উপর ২০০ শতাংশ শুল্ক চাপিয়েছে। এ বার সেই তালিকার নতুন সংযোজন পাকিস্তানে তিনটি নদীর জল প্রবাহ বন্ধের হুঁশিয়ারি। এ দিন কেন্দ্রীয় জলসম্পদ মন্ত্রী নিতিন গডকড়ী জানিয়ে দেন, তিন নদীর জল বন্ধ করে ভারতের দিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা তৈরি করতে ইতিমধ্যেই মন্ত্রককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই অনুযায়ী কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে। আর এই পদক্ষেপগুলো করে পাকিস্তানের উপর চাপ আরও বাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে ভারত। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এফটিএফ-এর দেওয়া সময়সীমার মধ্যে যদি নিজেদের তুলে ধরতে না পারে পাকিস্তান তা হলে কালো তালিকাভুক্ত হবে। আর সেটাই হবে ভারতের ‘নৈতিক জয়’।

ভারত পাক সম্পর্কের উত্থান পতন সম্পর্কে আপনি কতটা জানেন? 

আরও পড়ুন: ‘বন্ধ করে দেব তিন নদীর জল’, ঘোষণা গডকড়ীর, পাকিস্তানের উপর চাপ বাড়াল ভারত

আরও পড়ুন: ভারতের পাশে দাঁড়াল রাষ্ট্রপুঞ্জ, নাম না করে কড়া হুঁশিয়ারি পাকিস্তানকে

পাকিস্তান এই মুহূর্তে দেনায় ডুবে রয়েছে। সাহায্যের বিশ্বের দরজায় দরজায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিশাহি ইমরানকে সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এ মাসের গোড়াতে আন্তর্জাতিক অর্থ ভাণ্ডারের প্রধান ক্রিস্টিন ল্যাগার্দেও পাকিস্তানকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এফএটিএফ-এর ঘোষণা পর এখন পরিস্থিতি যে দিক মোড় নিতে চলেছে, তাতে কোনও ভাবে যদি পাকিস্তান কালো তালিকাভুক্ত হয়ে যায় তা হলে সে দেশের অর্থনীতি একেবারে ভেঙে পড়বে। এখন এই আশঙ্কাই ঘিরে ধরেছে পাকিস্তানকে।

 

(সারাবিশ্বের সেরা সব খবরবাংলায় পড়তে চোখ রাখতে পড়ুন আমাদের আন্তর্জাতিক বিভাগে।)