ভারত ও অন্যান্য দেশ থেকে আসা শিখ তীর্থযাত্রীদের পাক বিমানবন্দরে নামা-মাত্র (অন-অ্যারাইভাল) ভিসা এবং একাধিক প্রবেশের (মাল্টিপল) ভিসা দেওয়া হবে বলে জানালেন ইমরান খান। লাহৌরের গভর্নর হাউসে শিখদের এক সম্মেলনে আজ পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘করতারপুর আপনাদের মদিনা এবং নানকানা সাহিব আপনাদের মক্কা। আমরা (মুসলিমরা) ভাবতেও পারি না, কেউ আমাদের মক্কা বা মদিনা থেকে দূরে রাখবে। এটা নতুন ভিসার যুগ। প্রথমে হয়তো কিছু বাধা আসবে, কিন্তু পাকিস্তানের তীর্থস্থানগুলিতে যাওয়ার সময়ে আপনাদের সমস্ত সুবিধা দেব।’’ 

ইমরানের এই ঘোষণার মধ্যে ক্ষত মেরামতের চেষ্টাও দেখছেন কেউ কেউ। কারণ গুরু নানকের জন্মস্থান, পাকিস্তানের নানকানা সাহিবে সম্প্রতি এক গুরুদ্বারের পুরোহিতের কন্যাকে জোর করে ধর্ম পরিবর্তনের পরে এক মুসলিম যুবকের সঙ্গে বিয়েতে বাধ্য করা হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। পুলিশের হস্তক্ষেপে ওই কিশোরী বাড়ি ফিরলেও রাজনৈতিক আক্রমণের মুখে পড়েছেন ইমরান। গত কাল পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরেন্দ্র সিংহ ওই কিশোরীর নাম করে টুইটারে লিখেছেন, ‘‘জগজিৎ কৌরকে সাহায্য করতে ইমরান খান পুরোপুরি ব্যর্থ। ওই মেয়েটি ও তার পরিবারের যদি কোনও সাহায্য দরকার হয়, যদি তারা পঞ্জাবে এসে বসবাস করতে চায়, আমি খুশি হব।’’ 

বস্তুত আজ এক হিন্দু তরুণীকে অপহরণের পরে তাঁর ধর্ম পরিবর্তনের অভিযোগ উঠেছে পাকিস্তানের সিন্ধুপ্রদেশে। এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার দাবি, রেণুকা কুমারী নামে ওই তরুণীকে সুকুরের ইন্সটিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন থেকে অপহরণ করা হয়। এখনও তিনি নিখোঁজ। ঘটনায় বাবর আমন নামে তরুণীর এক সহপাঠীর নাম শোনা যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন তাঁর ভাই। 

আজকের শিখ সম্মেলনে পাক পঞ্জাব প্রদেশের গভর্নর চৌধরি সারওয়ার, প্রাদেশিক ও কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রীরা এবং ব্রিটেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশের শিখ তীর্থযাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন। ইমরান সেখানে বলেন, ‘‘আমি নিশ্চিত করছি, আপনাদের মাল্টিপল ভিসা দেওয়া হবে। এটা আমাদের দায়িত্ব।’’ তিনি এ-ও বলেন যে, এটি পাক সরকারের দায়বদ্ধতা। আগামী ১২ নভেম্বর গুরু নানকের ৫৫০তম জন্মবার্ষিকী। সেই উপলক্ষে তীর্থযাত্রীদের ১ সেপ্টেম্বর থেকে ভিসা দেওয়া শুরু করেছে পাকিস্তান। এই মাসের মধ্যেই সেই প্রক্রিয়া শেষ করে ফেলতে চায় প্রশাসন।