সম্প্রতি এক বেদনায়দায়ক ছবি সামনে এসেছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, মৃত সিংহের পাশে বসে এক দম্পতি চুম্বন করছেন। এটি দক্ষিণ আফ্রিকার লেগেলেলা সাফারির ছবি। এখানে শিকার করার ও তার পাশাপাশি ছবি তোলার আয়োজন করা হয়। জানা গিয়েছে, এই দম্পতি কানাডার বাসিন্দা। তাঁরা ট্রফি হান্টিংয়ের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়েছিলেন।

লেগেলেলা সাফারির ফেসবুক পেজে ছবিটি শেয়ার হওয়ার পর ভাইরাল হতে সময় নেয়নি। কিন্তু বিশ্বজুড়ে এত পশুপ্রেমী ও সাধারণ মানুষ এই ছবিটির বিরুদ্ধে রিপোর্ট করেন যে ফেসবুকে  লেগেলেলার পেজটিই ব্লক হয়ে গিয়েছে।

কানাডার এই দম্পতির নাম ড্যারেন ও ক্যারলিন কার্টার। তাঁরা লেগেলেলা সাফারিতে ‘ট্রফি হান্টিং’-এ অংশ নেন। সেখানে তাঁরা একটি সিংহ মারেন। তারপর সেই সিংহের পাশে বসে ছবি তোলেন। লেগেলেলা সাফারির ফেসবুক পেজে ছবিটির সঙ্গে লেখা হয়, “কালাহারির প্রখর রৌদ্রে কঠিন এই কাজকরেছেন...সাবাশ। দৈত্যাকার সিংহ।”

আরও পড়ুন : হ্রদের নীচের মাটি খুঁড়ে বার করা হল শতাব্দী প্রাচীন দু’টি ‘নন্দী’র মূর্তি

আরও পড়ুন : জেমস বন্ডের পরবর্তী ছবিতে ০০৭-এর ভূমিকায় এক কৃষ্ণাঙ্গ মহিলা!

ট্রফি হান্টিং হল খেলার ছলে বন্য পশু শিকার। পরে সেই পশুদের চামড়া, শিং ইত্যাদি স্মারক রূপে রাখা হয় বা প্রদর্শন করা হয় নিজেদের শিকারের সাফল্য তুলে ধরতে।

এই ছবি ছড়িয়ে পড়তেই এই ট্রফি হান্টিং নিষিদ্ধ করার জোরালো দাবি উঠতে শুরু করেছে। সেই সঙ্গে এই কানাডার দম্পতিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘নীচ’, ‘ন্যক্কারজনক’ বলে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন নেটিজেন। পরে যখন ড্যারেন কার্টারকে বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হয় তিনি বলেন, “আমরা বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করতে আগ্রহী নই। এটি অতিমাত্রায় রাজনৈতিক।”

 

 

 

ট্রফি হান্টিং নিষিদ্ধ ঘোষণার পক্ষে জোরালো সওয়াল করা এডুয়ার্ডো গনক্যালভেস বলেছেন, “ট্রফি হান্টিং একটি কদর্য বিষয়। প্রতি বছর ব্রিটেনে যে পরিমাণ হান্টিং ট্রফি ঢোকে তা জাতীয় ভাবমূর্তির ক্ষেত্রে কলঙ্কের।”

আফ্রিকায় গত দুই দশকে সিংহের সংখ্যা প্রায় ৪০ শতাংশ কমে গিয়েছে। কমে যাওয়া সিংহের সংখ্যাটা প্রায় ২০ হাজার।