ভিআইপি, সেলিব্রিটিদের বন্দুকধারী বডিগার্ড নিয়ে ঘুরতে সবাই দেখেছেন। কিন্তু কোনও হাতিকে বন্দুকধারী নিরাপত্তারক্ষী নিয়ে রাস্তায় চলতে দেখেছেন? এমনই দৃশ্য দেখা যায় দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কায়। নাদুনগামুয়া রাজা, বছর পঁয়ষট্টির এই হাতি এখন শ্রীলঙ্কার সেলিব্রিটি। উচ্চতা সাড়ে ১০ ফুট। তার জন্য কয়েকজন আগ্নেয়াস্ত্রধারী নিরাপত্তারক্ষী বরাদ্দ করা হয়েছে।

রাজা ব্যক্তিমালিকানাধিন হলেও অলিখিত ভাবে শ্রীলঙ্কার জাতীয় সম্পদ। কারণ শ্রীলঙ্কার জাতীয় উত্সবে যে কয়েকটি দাঁতাল হাতি বিশেষ ভাবে অংশ নেয়, রাজা তাদের অন্যতম। তার উপর রাজা এই মুহূর্তে শ্রীলঙ্কার সব থেকে লম্বা হাতি।

২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে একবার রাজা রাস্তায় বেরিয়েছিল। সেই সময় একটি মোটরসাইকেল রাজার খুব কাছাকাছি এসে দুর্ঘটনায় কবলে পড়ে। ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ দেখার পর শ্রীলঙ্কা সরকারের তরফে রাজার মালিক হর্ষ ধর্ম বিজয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। জানানো হয়, সরকার রাজার নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে চায়। তারপর থেকেই রাজার নিরাপত্তার জন্য কয়েকজন সেনা জওয়ান নিয়োগ করা হয়। রাজা যখনই রাস্তায় বার হয়, এই জওয়ানরা তখন তাকে ঘিরে রাখে। দু’জন জওয়ান সামনে থেকে রাস্তা খালি করতে করতে এগিয়ে নিয়ে যান রাজাকে।

আরও পড়ুন : হাতিদের উপর নির্মম অত্যাচার, অভিযোগ বন দফতরে কর্মীদের বিরুদ্ধেই!

শ্রীলঙ্কার জাতীয় উত্সবে অংশ নিতে রাজাকে প্রায় ৯০ কিলোমিটার দূর থেকে আনা হয়। প্রতিদিন ২৫ থেকে ৩০ কিলোমিটার হাঁটে রাজা। মূলত রাত্রেই বের হয় রাজার ‘কনভয়’। কারণ রাত্রে তাপমাত্রা যেমন কম থাকে তেমনি, রাস্তাঘাট ফাঁকাও থাকে।

আরও পড়ুন : লাইভ চলাকালীন সাংবাদিককে চুমু খেয়ে শাস্তির মুখে এক ব্যক্তি

এ বছর অগস্ট মাসে প্রায় ১০০টি হাতি শ্রীলঙ্কার এই জাতীয় উত্সবে অংশ নেয়। এই উত্সব পর্যটকদের কাছে শ্রীলঙ্কার অন্যতম আকর্ষণ।