একটি ভিডিয়ো টুইটারে শেয়ার হয়েছে এক লক্ষ ১৪ হাজারের বেশি বার। আর এখনও পর্যন্ত ভিডিয়োটি দেখা হয়েছে ১ কোটি ৫ লক্ষ বার। ভাবছেন কী এমন রয়েছে এই ভিডিয়োতে যা এভাবে ভাইরাল হয়েছে। আসলে যে ভিডিয়োটি সামনে এসেছে, সেটি কোনও গোরিলার না কাকের তা নিয়েই ধন্দে নেটিজেন।

এমনিতে রং ছাড়া কাক ও গোরিলার মধ্যে বিশেষ কোনও মিল নেই। তাও দুই প্রাণী যেন মিলে যাচ্ছে এই ভিডিয়োতে।আপনিও দেখে বলার চেষ্টা করুন এটি কাক না গোরিলা।যে ভিডিয়োটি সামনে এসেছে তা আপনাকেও বিভ্রান্ত করবে।

ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে রাস্তার ধার থেকে নেমে আসছে একটি সিঁড়ি। সেই ফাঁকা সিঁড়িতে একদম ওপরের ধাপে রোদে বসে রয়েছে কালো রঙের অদ্ভুত দর্শন একটি প্রাণী।দূর থেকে এক ঝলকে দেখলে মনে হবে কোনও গোরিলা। আবার মুখটা কাকের মতো। গোরিলা যে ভাবে চার পায়ে ভর করে বসে সেই রকমই দেখতে লাগছে। মুখ দেখে কাক মনে হলেও, শরীরের বাকি অংশ দেখে কোনও ভাবেই কাক বলে বিশ্বাস করা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন : নিজেই ওষুধের দোকানে গিয়ে চিকিত্সা চাইল আহত কুকুর!

আরও পড়ুন : নকল সিংহ ধরার প্রশিক্ষণ দেখে হতবাক ‘আসল’ সিংহরা

 

তবে আসলে এটি কী, কাক না গোরিলা? না অন্য কিছু? এর উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করেছেন, কেইলি স্যুইফ্ট নামে এক গবেষক। যাঁর টুইটার প্রোফাইলে দেখা যাচ্ছে তিনি কাক নিয়ে গবেষণা করেন। তাঁর ভেরিফায়েট টুইটার হ্যান্ডল (কেইলি স্যুইফ্ট, পিএইচডি)-এ তিনি এই ছবিটি ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছেন। সেখানে তিনি দাবি করেছেন, এটি একটি বড় আকারের কাক। সাধারণত পাখিরা রোদ পোহানোর সময় ডানা দুটিকে নিচের দিকে মাটি পর্যন্ত ঝুলিয়ে দেয়। আর লেজটি এমন ভাবে ওপরের দিকে তুলে মেলে ধরে যে সামনে থেকে দেখলে সেটি দেখা যাবে না। এক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। আর পা দুটি ঢেকে যায় ডানার মাঝে। ফলে এই কাকটিকে দেখতে গরিলার মতো লাগছে।

 

 

 

 

 

এমনকি কেউলি একটি কাগজে তিনটি ছবি এঁকে গোটা বিষয়টিকে আরও স্পষ্ট করে তোলার চেষ্টা করেছেন। সেখানে তিনটি ছবিতে আলাদা আলাদা কোণ থেকে একটি কাককে দেখিয়েছেন, যাতে ভাইরাল এই কাকটি কেন এমন গরিলার মতো দেখতে লাগছে তা বোঝানোর চেষ্টা করেছেন তিনি।

 

আর এই ভিডিয়ো সামনে আসতেই নেটিজেন রিটুইট কমেন্টের পাশাপাশিকাক আর গোরিলার সংমিশ্রণে অদ্ভুত সব মিম তৈরি করতে শুরু করেছে। কেউ মুখটাকে কাকের রেখে শরীরটা গরিলার মতো বানিয়েছেন, কেউ করেছেন উল্টোটা।