বাংলাদেশের ক্রিকেটে হঠাৎই অচলাবস্থা। ধর্মঘটের ডাক দিলেন ক্রিকেটাররা। যার জেরে আচমকাই অনিশ্চিত দেখাচ্ছে ভারতের বিরুদ্ধে আসন্ন সিরিজ।

সোমবার দুপুরে মিরপুরের শের ই বাংলা স্টেডিয়ামে সাংবাদিক সম্মেলন ডেকেছিলেন ক্রিকেটাররা। সেখানেই প্রচারমাধ্যমের সামনে ১১ দফা দাবি পেশ করলেন ক্রিকেটাররা। শাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমরা সাফ জানালেন, দাবি না মানা পর্যন্ত তাঁরা খেলবেন না। বাংলাদেশের ক্রিকেটে  এই ঘটনা নজিরবিহীন। তবে এর আওতায় পড়ছে না অনূর্ধ্ব-১৯ দল। তারা বিশ্বকাপের জন্য তৈরি হচ্ছে। সেই কারণেই এই ধর্মঘটের বাইরে রাখা হচ্ছে যুব ক্রিকেটারদের।

জানা গিয়েছে, আর্থিক কারণেই এই সিদ্ধান্তে এসেছেন ক্রিকেটাররা। গত মাসে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ফ্র্যাঞ্চাইজি মডেল বাতিল করে দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। যার ফলে ক্রিকেটারদের গড়পড়তা আয় কমেছে অনেকটাই। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের ম্যাচ ফি-ও বাড়ায়নি বোর্ড। যার ফলে ক্রিকেটারদের দুর্দশা আরও বাড়ে। গত মাস থেকেই পেশাদার ক্রিকেটাররা এই ব্যাপারে অসন্তোষ জানিয়ে আসছিলেন। ক্রিকেটারদের উপর এই চাপের প্রতিবাদে আগেই মুখ খুলেছিলেন শাকিব। এ বার সমস্ত ক্রিকেটাররাই একসঙ্গে প্রতিবাদে নামলেন। ডাক দিলেন ধর্মঘটের।

আরও পড়ুন: টেস্টে অনন্য রেকর্ড! এ বার ব্র্যাডম্যানকেও পিছনে ফেললেন রোহিত​

আরও পড়ুন: ছয় ইনিংসে ১৪২! একই দিনে দু’বার আউট, ভারতে ব্যর্থতা অব্যাহত দু’প্লেসির​

১১ দফা দাবির মধ্যে কী রয়েছে? জানা গিয়েছে, খেলোয়াড়দের বেতন বৃদ্ধির উপরে জোর দেওয়া হচ্ছে। তা ছাড়া, চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের সংখ্যা বাড়ানোর দাবি থাকছে। থাকছে বোর্ডের বেতনের আওতায় থাকা সমস্ত কর্মীর বেতন বাড়ানোর দাবিও। সঙ্গে থাকছে পরিকাঠামোয় উন্নয়নের দাবি। যার মধ্যে পড়ছে ঘরোয়া ক্রিকেটের বিভিন্ন স্তরে থাকা দুর্নীতি ছেঁটে ফেলার প্রসঙ্গ। ক্রিকেটাররা চাইছেন আরও বেশি করে প্রতিযোগিতায় খেলতে।

এদিকে, ৩ নভেম্বর থেকে ভারতে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলার কথা বাংলাদেশের। ৩, ৭ ও ১০ নভেম্বর যথাক্রমে নয়াদিল্লি, রাজকোট ও নাগপুরে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ রয়েছে। তার পর রয়েছে টেস্ট সিরিজ। সূচি অনুসারে ১৪ নভেম্বর থেকে ইনদওরে ও ২২ নভেম্বর থেকে কলকাতায় হবে টেস্ট। কিন্তু এখন সবকিছুই দেখাচ্ছে অনিশ্চিত।