• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

হাসপাতালে মনদীপ, হকি শিবির ঘিরে অনিশ্চয়তা

Mandeep Singh
আক্রান্ত: মনদীপ সিংহ। অক্সিজেন স্তর কমে যাওয়ায় হাসপাতালে।

করোনা আতঙ্কের ধাক্কা এ বার হকিতে। বেঙ্গালুরুতে জাতীয় হকি খেলোয়াড়দের শিবিরে ছ’জন পুরুষ খেলোয়াড় সংক্রমিত হয়েছেন। 

কিন্তু উদ্বেগ বেড়ে গিয়েছে, স্ট্রাইকার মনদীপ সিংহকে হাসপাতালে ভর্তি করাতে হওয়ায়। মনদীপের অক্সিজেনের স্তর কমতে থাকায় ঝুঁকি নেওয়ার আর প্রশ্ন ছিল না। তবে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হওয়ায় ঘটনার মাত্রা অন্য স্তরে পৌঁছে গিয়েছে। সংশয় দেখা দিয়েছে, জাতীয় দলের শিবির হবে কি না, তা নিয়েও। যদিও মহিলা জাতীয় দলের সবার পরীক্ষার রিপোর্টই ‘নেগেটিভ’। 

জাতীয় দলের যে ছয় হকি খেলোয়াড় সংক্রমিত হয়েছেন, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন, অধিনায়ক মনপ্রীত সিংহ, স্ট্রাইকার মনদীপ সিংহ, ডিফেন্ডার সুরেন্দ্র কুমার, জসকরণ সিংহ, ড্র্যাগফ্লিকার বরুণ কুমার ও গোলকিপার কৃষাণ বাহাদুর পাঠক। ২০ অগস্ট থেকে বেঙ্গালুরু সাইয়ে জাতীয় হকি দলের শিবির শুরু হওয়ার কথা ছিল। শিবিরের জন্য এই ছয় খেলোয়াড় বেঙ্গালুরুতে গিয়ে পৌঁছনোর পরে নিভৃতবাসে থাকার কথা। এর মধ্যেই পরীক্ষা হওয়ায় তাঁরা করোনা ‘পজিটিভ’ হন। সাইয়ের একটি সূত্র সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে জানিয়েছে, ‍‘‍‘বাকিদের কী রিপোর্ট আসে, তা দেখার অপেক্ষায় রয়েছি। পুরুষদের শিবির শেষ পর্যন্ত হবে কি না তা নিয়েই সংশয় তৈরি হচ্ছে।’’ যোগ করেছেন, ‍‘‍‘তবে মহিলাদের সব খেলোয়াড়ই পরীক্ষায় নেগেটিভ হয়েছেন। তাঁদের ১৪ দিন নিভৃতবাসে রাখা হচ্ছে।’’

এই মুহূর্তে শিবিরে যোগ দেওয়ার জন্য বেঙ্গালুরুতে রয়েছেন ৩৩জন পুরুষ ও ২৪জন মহিলা হকি খেলোয়াড়। যে ছ’জন পুরুষ খেলোয়াড় সংক্রমিত, তাঁদের বেশিরভাগই পঞ্জাব থেকে এসেছিলেন। এঁরা দিল্লি হয়ে ১০ জনের একটি দলের সঙ্গে আসেন বেঙ্গালুরুতে। জানা গিয়েছে, ছোট ছোট দলে ভাগ করে অনুশীলন হতে পারে চলতি মাসের শেষ দিকে জাতীয় হকি শিবির শুরু হলে। চলবে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

সংবাদ সংস্থা আরও জানিয়েছে, যে খেলোয়াড়েরা করোনা আক্রান্ত, তাঁদের বেশির ভাগই যে নিয়মবিধি মেনে চলার কথা ছিল, তা এড়িয়ে গিয়েছিলেন। যার ফল ভুগতে হচ্ছে। যদিও ঠিক কী ভাবে খেলোয়াড়েরা নিয়ম অমান্য করেছেন, তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা এখনও কেউ দেননি। তবে ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেছেন বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় হকি দলের প্রাক্তন অধিনায়ক অজিত পাল সিংহ। তাঁর কথায়, ‍‘‍‘পুরুষ হকি খেলোয়াড়দের আরও সতর্ক থাকার দরকার ছিল। ওরা জাতীয় নায়ক, যুবসমাজ তো ওদেরই অনুসরণ করবে। নিভৃতবাসে থাকার সময়ে সেই নিয়ম ওরা মানেনি কেন?’’ যোগ করেছেন, ‍‘‍‘ফেডারেশন কর্তারাও দায়িত্ব এড়াতে পারেন না। ছেলেরা যাতে ঘরেই নিভৃতবাসে থাকার সময়ে নিয়ম মানে, তা নিশ্চিত করতে হত তাঁদের। মেয়েরা তা মেনেছে বলেই ওদের কোনও সমস্যা নেই।’’ তাঁর আরও প্রশ্ন, ‍‘‍‘আগামী বছর এপ্রিলের আগে সে রকম বড় কোনও প্রতিযোগিতা নেই। তা হলে তাড়াহুড়ো করে কেন শিবির শুরু হল! জীবনের দাম অনেক বেশি।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন