ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যে মহেন্দ্র সিংহ ধোনি যাবেন না, তার আভাস আগে থেকেই ছিল। বিশ্বকাপের পরেই খবর ছড়িয়েছিল, ক্যারিবিয়ান সফর থেকে নিজেই নিজেকে সরিয়ে নেবেন মাহি।

রবিবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের জন্য ভারতের দল নির্বাচন। আর তার আগে, শনিবার বোর্ডের এক শীর্ষ কর্তা জানিয়ে দিলেন, “ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের জন্য ধোনি নিজেই নিজেকে সরিয়ে নিয়েছে। আগামী দু’মাস দেশের আধা সামরিক বাহিনীর কাজে ব্যস্ত থাকবে বলে জানিয়েছে ধোনি।’’ অর্থাৎ এখনই অবসর নয়। দেশের কাজেই নিজেকে ব্যস্ত রাখতে চান মাহি।  

ভারতের বিশ্বজয়ী অধিনায়কের অবসর নিয়ে জল্পনার ইয়ত্তা নেই। তিনি চুপ, অথচ তাঁকে নিয়েই কত আলোচনা! সংবাদমাধ্যমে প্রায় প্রতি দিনই নিয়ম করে তাঁকে নিয়ে কালি খরচ হচ্ছে। বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পরেই আনন্দবাজার জানিয়েছিল, বিশ্বকাপের পরে সেনাবাহিনীর কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়বেন ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক। ধোনির এক বন্ধু জানিয়েছিলেন, ইন্ডিয়ান টেরিটোরিয়াল আর্মির পোস্টিং চাইবেন বিশ্বজয়ী অধিনায়ক। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ধোনির সেই বন্ধু জানিয়েছিলেন, সেনাবাহিনীর কাজে সিয়াচেনে পাঠানো হতে পারে ধোনিকে। সেনা-জওয়ানদের মতোই দেশের সেবা করতে চায় ধোনি।

আরও পড়ুন: অবসর নিয়ে টেরিটোরিয়াল আর্মিতে কাজ করতে চান ধোনি

আরও পড়ুন:  এখনই অবসরের পরিকল্পনা নেই ধোনির, দাবি করলেন তাঁর দীর্ঘ দিনের বন্ধু

ধোনিকে নিয়ে বোর্ড কর্তার এ দিনের মন্তব্য প্রাক্তন ভারত অধিনায়ককে নিয়ে তাঁর বন্ধুর করা বক্তব্যকেই যেন মান্যতা দিল। ২০১১ সালের ১ নভেম্বর ধোনিকে ইন্ডিয়ান টেরিটোরিয়াল আর্মির সাম্মানিক লেফটেন্যান্ট কর্নেল পদ দেওয়া হয়েছিল। ক্রিকেট মাঠে দেশের জন্য তিনি একের পর এক ছক্কা হাঁকিয়েছেন। কঠিনতম পরিস্থিতি থেকে দলকে বাঁচিয়েছেন তিনি। এ বার তিনি দেশের জন্যই নিজেকে নিয়োজিত করবেন সেনবাহিনীর কাজে। সেনাবাহিনীর প্রতি শ্রদ্ধা, ভালবাসা বারংবার প্রকাশ করেছেন ধোনি। বিশ্বকাপে ভারতের প্রথম ম্যাচে সেনাবাহিনীর পরিচয় চিহ্ন সম্বলিত গ্লাভস পরে খেলতে নেমেছিলেন ধোনি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ম্যাচে ধোনির গ্লাভসে সেনাবাহিনীর পরিচয় চিহ্ন দেখার পরে কম জলঘোলা হয়নি। আইসিসি ও বোর্ডের মধ্যে মেল দেওয়া নেওয়ার পরে অন্য গ্লাভস পরে খেলতে নেমেছিলেন তিনি।

এত দিন উইকেটের পিছনে দাঁড়িয়ে কোহালিকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়েছেন, বোলারদের জন্য ফিল্ডিং সাজিয়ে দিয়েছেন। এ বার সম্পূর্ণ অন্য কাজ করবেন ভারতের সফলতম অধিনায়ক। দেশের নিরাপত্তার সঙ্গে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িয়ে পড়লেন তিনি। মাঠের গণ্ডি অতিক্রম করে ধোনি নিজেকে নিয়ে গেলেন অন্য এক উচ্চতায়। নিজেই হয়ে গেলেন উদাহরণ।