ভারতে মেগা কোনও টুর্নামেন্ট হলে বিদেশি ক্রীড়াবিদদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে ভারত সরকার আর বাছবিচার করবে না। আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি (আইওসি)-কে এই মর্মে জানিয়ে দিয়েছে ভারত সরকার। সরকার তাদের আগের অবস্থান থেকে এখন সরে আসায় পাকিস্তানি ক্রীড়াবিদদেরও ভিসা পেতে আর সমস্যা হবে না। ‘ইন্ডিয়ান এক্সেপ্রেস’-এর প্রতিবেদনে এমন তথ্যই উঠে এসেছে।

ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে সরকার আগের মতো কঠোর অবস্থান না নেওয়ায় ২০৩২ অলিম্পিক আয়োজন করার বিড করতে পারবে ইন্ডিয়ান অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (আইওএ)। সেই সঙ্গে ২০২৬ ইয়ুথ অলিম্পিক আয়োজন নিয়েও কথাবার্তা এগোতে পারবে তারা। আইওসি প্রধান থমাস বাচ এবং আইওএ প্রেসিডেন্ট নরিন্দর বাত্রাকে দেওয়া চিঠিতে ক্রীড়া সচিব রাধেশ্যাম জুলানিয়া জানিয়েছেন, ‘‘সরকার সমস্ত অলিম্পিক কমিটির যোগ্য অ্যাথলিটদের ভারতের মাটিতে হতে চলা সমস্ত টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার জন্য অনুমতি দেবে।’’ চিঠিতে এমনও বলা হয়েছে, ভারত সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি হল, সারা বিশ্ব একটা পরিবারের অংশ। দেশের মাটিতে যে কোনও টুর্নামেন্ট আয়োজন করার ক্ষেত্রে এ বার থেকে আইওএ-কে সহযোগিতা করা হবে বলে জানানো হয়েছে সেই চিঠিতে। ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে বিচার্য হবে না প্রতিযোগীর দেশ।

এর আগে দেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত শুটিং বিশ্বকাপে দুই পাকিস্তানি শুটার এবং তাঁদের ম্যানেজারকে ভিসা দেওয়া হয়নি। সেই কারণে আন্তর্জাতিক ক্রীড়া মহলে প্রবল চাপের মুখে পড়েছিল ভারত। পুলওয়ামায় জওয়ানদের উপরে জঙ্গি হানার পরেই পাকিস্তানি ক্রীড়াবিদদের ভিসা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে ভারতের কঠোর মনোভাবের ফলে সেই সময়ে আইওসি সিদ্ধান্ত নেয় যে সব আন্তর্জাতিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আয়োজনের জন্য ভারতের সঙ্গে আলোচনা চলছিল, সেগুলিও স্থগিত করে দেওয়া হবে। এর পরে অলিম্পিকের মতো কোনও প্রতিযোগিতা ভারতে করতে হলে সরকারকে প্রতিশ্রুতি দিতে হবে, কোনও প্রতিযোগী দেশের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ করা করা যাবে না।

আরও পড়ুন: ২০৩২ অলিম্পিক কি ভারতে? আয়োজনে আগ্রহী আইওএ

আরও পড়ুন: চাপে পড়ে এশিয়াড নিয়ে সভা আইওএ-র

আইওএ-র এক বর্ষীয়ান কর্তা জানিয়েছেন, ২০২৬ ইয়ুথ অলিম্পিক, ২০৩২ অলিম্পিক এবং আইওসি কংগ্রেস আয়োজন করা নিয়ে আইওসি-র সঙ্গে নতুন করে কথা বলা হবে। আইওসি-কে এই মর্মে  চিঠিও দেওয়া হয়েছে। পরের সপ্তাহে লুসানে এ নিয়ে আলোচনা হবে।