• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

আলুর ‘আগুন’ দামে প্রলেপ সুফল বাংলাই

fair price shop
প্রতীকী ছবি।

আলু-পেঁয়াজের দর ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী। কৃষি-কর্তারা জানাচ্ছেন, দাম যে ভাবে বাড়ছে, তা নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের আপাতত কিছুই করণীয় নেই। তাঁদের যুক্তি, কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইনের আওতা থেকে আলু এবং পেঁয়াজ বেরিয়ে যাওয়ায় রাজ্য সরকারের হাত-পা কার্যত বাঁধা। ফলে দাম নিয়ন্ত্রণে বাজারে বাজারে আগের মতো অভিযান চালিয়ে আর কোনও লাভ নেই। এই পরিস্থিতিতে নিজেদের ‘অসহায়’ বললেও, সাময়িক ব্যবস্থাপনায় নিয়ন্ত্রিত দরে আলু সরবরাহের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। 

রাজ্যের কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার বলেন, “২০১৪ সালে এমন পরিস্থিতি হওয়ায় প্রশাসন বাধ্য করেছিল নিয়ন্ত্রিত দরে আলু বিক্রি করতে। কিন্তু তখন আলু-পেঁয়াজ অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আইনের আওতায় ছিল। এখন কেন্দ্রের নতুন আইনের ফলে রাজ্যের হাতে কিছু নেই।”  

কৃষি-কর্তারা জানাচ্ছেন, সুফল বাংলার ৬৩০টি স্টল থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রির ব্যবস্থা আপাতত চালু থাকবে। পাশাপাশি, বিভিন্ন জেলায় ওই একই দরে আলু পৃথক ভাবে সরবরাহও করা হচ্ছে। স্থানীয় বাজারগুলি থেকে সেই আলু পাওয়া যাবে। এক কর্তার কথায়, “আপাতত ২৫ লক্ষ কুইন্টাল আলু রয়েছে। সেখান থেকেই এ ভাবে সরবহার করা হবে। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত সেই মজুত থাকবে। তার পরে নতুন আলু বাজারে এলে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হতে পারে।”

বুধবার রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে আলু-পেঁয়াজ কেজিপ্রতি অনেক বেশি দামে বিক্রি হয়েছে। বীরভূমে আলুর দর কেজিপ্রতি ৪৫-৪৮ টাকা এবং পেঁয়াজ ৬০-৭০ টাকা। গৌড়বঙ্গে আলু কিলোপ্রতি ৪০-৪৫ টাকা এবং পেঁয়াজ ৬৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। ডুয়ার্স ও সংলগ্ন জেলায় আলুর দাম ছিল প্রতি কিলোতে ৫০-৫৫ টাকা এবং পেঁয়াজ ৮০ টাকা। শিলিগুড়িতে আলুর প্রতি কেজি দর ৫৫-৬০ টাকা এবং পেঁয়াজ ৭৫-৮০ টাকা ছিল। 

দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিংয়ে আলু কেজি প্রতি ৪২-৪৩ এবং পেঁয়াজ ৬৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। উত্তর ২৪ পরগনায় আলু ৪৪-৪৬ টাকা এবং পেঁয়াজ ৮০-৯০ টাকায় বিকোচ্ছে। গ্রামীণ হাওড়ায় আলু ৪৬-৪৮ টাকা এবং পেঁয়াজের দর ৭০ টাকা প্রতি কেজি ছিল। হুগলিতে আলুর দর ছিল ৪৫-৪৮ টাকা এবং পেঁয়াজ ৭০-৮০ টাকা। পশ্চিম বর্ধমানের আসানসোলে জ্যোতি আলু ৩৪-৩৬ টাকা, দুর্গাপুরে ৪২-৪৫ টাকা টাকায় বিক্রি হয়েছে। ওই জেলায় পেঁয়াজের দর কেজিপ্রতি ৫০-৬০ টাকা। পূর্ব বর্ধমানে জ্যোতি আলুর কেজিপ্রতি দর ছিল ৪২-৪৪ টাকা, চন্দ্রমুখী ৪৮-৫০ টাকা এবং পেঁয়াজ ৭০-৭২ টাকা। পুরুলিয়া, বাঁকুড়ায় আলু এবং পেঁয়াজ প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে যথাক্রমে ৪৫ ও ৭০ টাকায়। মেদিনীপুরে আলুর দর কেজিপ্রতি ৪৫ থেকে ৫৩ টাকার মধ্যে ঘোরাফেরা করেছে। পেঁয়াজ কোথাও ৭০-৮০ অথবা ৯০-৯৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন