আগামী সপ্তাহে রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে কাশ্মীর ইস্যু উঠতে পারে। তা তুলতে পারেন রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব আন্তোনিও গুয়েতেরেস।

কাশ্মীরে মানবাধিকার রক্ষার বিষয়টি নিয়ে যাতে সাধারণ পরিষদের সদস্য দেশগুলি আলোচনা করতে পারে, সে জন্যই মহাসচিব ওই প্রসঙ্গের অবতারণা করতে পারেন বলে জানিয়েছেন গুয়েতেরেসের মুখপাত্র স্তেফানি দুজারিক। দিল্লি বরাবরই বলে এসেছে, কাশ্মীর ভারতের অঙ্গ। তাই ওই ইস্যুতে ভারত শুধুই পাকিস্তানের সঙ্গে আলোচনায় বসতে পারে। কিন্তু তৃতীয় কোনও দেশের সঙ্গে এ ব্যাপারে আলোচনা করতে রাজি নয়।

বৃহস্পতিবার দুজারিক সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘‘মহাসচিব আগেও জানিয়েছেন, বিষয়টির উপর নজর রাখা হচ্ছে। আমার মনে হয়, বিষয়টি নিয়ে আলোচনার জন্য তিনি সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের সুযোগটাকে কাজে লাগাতে পারেন।’’ তাঁর বক্তব্য, ‘‘এটা কাশ্মীরের এখনকার সমস্যা মেটানোর একটা ধাপ। যাতে সেখানে মানবাধিকার রক্ষার বিষয়টির উপর পর্যাপ্ত গুরুত্ব দেওয়া হয়।’’

আরও পড়ুন- রাষ্ট্রপুঞ্জের কী অবস্থান, জানতে চায় আমেরিকা​

আরও পড়ুন- কাশ্মীরে পুলিশের মার সাংবাদিকদের​

কাশ্মীর সমস্যা মেটাতে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে ‘আলোচনা’র উপর বুধবারই জোর দিয়েছেন রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব। সেই আলোচনাকে ‘আক্ষরিক অর্থেই প্রয়োজনীয়’ বলে উল্লেখ করে গুয়েতেরেস বুধবার বলেন, ‘‘সবটাই নির্ভর করছে সদিচ্ছার উপর। সেটা দু’পক্ষেরই থাকতে হবে। আর সেই সদিচ্ছাটা দু’পক্ষকে দেখাতেও হবে।’’

এক পাকিস্তানি সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে গুয়েতেরেস এও বলেন, ‘‘আমি এটা স্পষ্ট করে দিতে চাই যে, সেখানে (কাশ্মীরে) মানবাধিকারকে সর্বাধিক মর্যাদা দিতে হবে। এটাও স্পষ্ট করে বলতে চাই যে, সমস্যা মেটানোর জন্য ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে আলোচনাটা আক্ষরিক অর্থেই প্রয়োজনীয়।’’