• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

চাপ জয় করাতেই ম্যাচ জয়, বলছেন টেলর

Ross Taylor says conquering pressure helped to win against India
আগ্রাসী: ভারতীয় স্পিনারদের এ ভাবেই সুইপ করে দলের জয়ের পথ মসৃণ করে দিলেন নিকোলস। বুধবার হ্যামিল্টনের সেডন পার্কে। গেটি ইমেজেস

বড় রান তাড়া করে ভারতকে হারানোর পরে নিউজ়িল্যান্ডের নায়ক রস টেলর বোমা ফাটিয়ে গেলেন। বলে দিলেন, তাঁদের টি-টোয়েন্টি দলের চেয়ে ওয়ান ডে দল অনেক ভাল চাপ সামলাতে পারে। ৩৪৮ রান তাড়া করে ভারতের মতো সফল দলকে হারানো সেটাই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল। 

ওয়ান ডে-তে ২১তম সেঞ্চুরি করে নিউজ়িল্যান্ডকে জেতালেন টেলর। চার উইকেটে জিতে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ এগিয়ে যাওয়া নিউজ়িল্যান্ড যে কঠিন প্রতিপক্ষ হয়ে উঠল কোহালিদের সামনে, তা সকলেই মানছেন। টেলর বলছেন, ‘‘কুড়ি ওভারের সিরিজে আমরা ০-৫ হোয়াইটওয়াশ হয়েছি। তার পর এ রকম একটা জয় পেয়ে সত্যিই খুব আনন্দ হচ্ছে। এটা সম্ভব হয়েছে কারণ নতুন ছেলেরা ওয়ান ডে দলে এসেছে। টি-টোয়েন্টিতে হারের প্রভাব তাই তাদের মধ্যে ছিল না।’’ 

বিশ্বকাপে নিউজ়িল্যান্ডের কাছেই সেমিফাইনালে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হয়েছিল কোহালিদের। সেই প্রসঙ্গ ফিরে আসে কারণ ভারত ৫-০ হোয়াইটওয়াশ করলেও সেটা ছিল টি-টোয়েন্টিতে। টেলর মনে করিয়ে দেন, ‘‘বিশ্বকাপেও আমরা যে ম্যাচটা জিতেছিলাম, সেখানেও চাপ সামলাতে হয়েছিল। ছেলেরা সেটা খুব ভালই পেরেছিল। টি-টোয়েন্টির চেয়ে আমাদের ওয়ান ডে দলে বেশি অভিজ্ঞ ক্রিকেটার রয়েছে। আমার মনে হয়, সেই তফাতটাও এই জয়ের পিছনে একটা কারণ।’’ যদিও ১-০ এগিয়ে গিয়ে আত্মতুষ্ট হতে বারণ করছেন নিউজ়িল্যান্ড ব্যাটিংয়ের প্রধান স্তম্ভ। বলছেন, ‘‘সিরিজে এখনও অনেক খেলা বাকি। ০-৫ পর্যুদস্ত হওয়ার পরে এখানে প্রথম ম্যাচ জেতাটা আমাদের মনোবল বাড়িয়ে তুলবে। কিন্তু এখনও অনেক রাস্তা যাওয়া বাকি।’’ 

হ্যামিল্টন মাঠের অন্য রকম মাপ এবং কয়েকটি দিকে ছোট বাউন্ডারি সাহায্য করেছে বলে মেনে নেন টেলর। পাশাপাশি, এ-ও বলে দিচ্ছেন যে, তিনি একা ম্যাচ জেতাননি। দলের সব ব্যাটসম্যান অবদান রেখেছে বলেই এই জয় এসেছে। ‘‘নিউজ়িল্যান্ডে এই মাঠগুলোতে সুবিধা যেমন আছে, তেমন জটিলতাও আছে। কোনটা জেতার মতো স্কোর বুঝে ওঠা কঠিন। তবে একটা কথা বলে দিতে পারি। যে মাঠেই খেলা হোক, সব জায়গাতেই তো ভাবতে হবে, আমরা জিততে পারি।’’ যোগ করছেন, ‘‘ব্যাটসম্যানদের প্রত্যেকে অবদান রেখেছে। এমনকি বোলিংও ভাল করেছে। একটা সময় দেখে মনে হচ্ছিল, ভারত হয়তো ৩৬০-৩৭০ তুলে ফেলবে। ওদের যে ৩৫০-এর নীচে রাখা গিয়েছে, সেটা একটা প্রাপ্তি। মানসিক ভাবেও ইতিবাচক ব্যাপার আসে, ওদের সাড়ে তিনশোর উপর যেতে দিইনি।’’

তবু এমন বড় স্কোর তাড়া করে ম্যাচ জিততে গেলে নিউজ়িল্যান্ডকে দারুণ ব্যাট করতে হত। টেলর বলছেন, মার্টিন গাপ্টিল এবং হেনরি নিকোলস খুব ভাল শুরু করে দিয়েছিলেন। ‘‘ওদের দু’জনের ভাল শুরুর পরে পাঁচ নম্বরে এসে টম লাথাম দারুণ খেলল।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন