• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

করোনায় আক্রান্ত প্রিন্স চার্লস, রয়েছেন আইসোলেশনে

Prince Charles
প্রিন্স চার্লস। —ফাইল চিত্র।

নোভেল করোনা এ বার ঢুকে পড়ল ব্রিটেনের রাজপ্রাসাদেও। স্বয়ং প্রিন্স চার্লসই এ বার কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। এই মুহূর্তে স্কটল্যান্ডের বালমোরাল প্রাসাদে আইসোলেশনে রয়েছেন তিনি। তাঁর স্ত্রী ক্যামিলা, ডাচেস অব কর্নওয়ালেরও ডাক্তারি পরীক্ষা হয়েছে। তবে তাঁর রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। তিনিও গৃহ পর্যবেক্ষণে রয়েছেন।

বুধবার ক্ল্যারেন্স হাউসের এক মুখপাত্র বলেন, ‘‘প্রিন্স চার্লসের রিপোর্ট পজিটিভ। হালকা কিছু উপসর্গ দেখা দিলেও, এত দিন সুস্থই ছিলেন তিনি। বাড়ি থেকে কাজও চালিয়ে যাচ্ছিলেন। ডাচেস অব কর্নওয়ালেরও ডাক্তারি পরীক্ষা হয়েছে। তবে ওঁর শরীরে ভাইরাস ধরা পড়েনি। চিকিৎসক এবং সরকারের পরামর্শে এই মুহূর্তে স্কটল্যান্ডে রয়েছেন তাঁরা।

গত ১০ মার্চ লন্ডনে একটি অনুষ্ঠানে মোনাকোর প্রিন্স অ্যালবার্টের সঙ্গে মুখোমুখি বসেছিলেন চার্লস। চলতি সপ্তাহেই প্রিন্স অ্যালবার্টের শরীরে কোভিড-১৯ ভাইরাস ধরা পড়েছে। তার পরই ৭১ বছর বয়সী প্রিন্স চার্লসের আক্রান্ত হওয়ার খবর সামনে এল। সম্প্রতি বাকিংহ্যাম প্রাসাদের এক কর্মীর শরীরেও নোভেল করোনা ধরা পড়ে।

আরও পড়ুন: বাড়ি বাড়ি বৃদ্ধাশ্রম, এই লকডাউনে কী ভাবে কাটছে ওঁদের?​

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রিন্স অ্যালবার্টের সঙ্গে সাক্ষাতের পরও চার্লসের মধ্যে করোনার উপসর্গ দেখা দেয়নি। যে কারণে ১২ মার্চ বাকিংহ্যাম প্রাসাদেও যান চার্লস। এমনকি বেশ কিছু অনুষ্ঠানেও যোগ দিতে দেখা যায় তাঁকে। করোনার প্রকোপ এড়াতে সেখানে করমর্দনের বদলে সৌজন্য বিনিময়ের সময় হাতজোড় করে নমস্কার করেন চার্লস।

আরও পড়ুন: রাস্তায় বাধা কেন, সল্টলেকে পুলিশের গায়ে লালা-লিপস্টিক লাগিয়ে দিলেন তরুণী!​

তবে শারীরিক ভাবে কারও সংস্পর্শে না আসা সত্ত্বেও করোনায় আক্রান্ত হওয়ার নজির রয়েছে। বাকিংহ্যাম প্রাসাদের অন্দরে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তবে রানি এলিজাবেথ এই মুহূর্তে বাকিংহ্যাম প্রাসাদের বাইরেই রয়েছেন। ব্রিটেনে করোনা হানা দেওয়ার কিছু দিন পরই স্বামী প্রিন্স ফিলিপের সঙ্গে উইন্ডসর প্রাসাদে সরে যান তিনি। ছেলেমেয়েদের নিয়ে অ্যামনার হলে রয়েছেন প্রিন্স উইলিয়াম এবং ডাচেস অব কেমব্রিজ কেট।

এই মুহূর্তে ব্রিটেনে ৮ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। এখনও পর্যন্ত ৪২৩ জন প্রাণ হারিয়েছেন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪০ জন।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন