ইরাকের কানুস দ্বীপে বড়সড় বিমান হানা চালাল মার্কিন বায়ুসেনা। হামলায় মৃত্যু হয়েছে অন্তত ২৫ আইএস জঙ্গির। মার্কিন সেনা সূত্রে খবর, ইরাকের এই দ্বীপটিকে হোটেলের মতো ব্যবহার করত জঙ্গিরা। সিরিয়া থেকে ইরাকে যাওয়ার পথে এখানে বিশ্রাম নিত। সেই খবর পেয়েই হামলার পরিকল্পনা করে মার্কিন ও ইরাকি সেনার যৌথবাহিনী। ব্যবহার করা হয় অত্যাধুনিক যুদ্ধ বিমানও।

এই দ্বীপে মাটির উপর বিশেষ কোনও নির্মাণ না থাকলেও, মাটির নীচে গর্ত করে গুহা তৈরি করা হয়েছিল। সেখানে জঙ্গিদের বিশ্রামের ব্যবস্থা ছিল বলে জানিয়েছে ইরাকের কাউন্টার টেররিজম সার্ভিস (সিটিএস)।

মার্কিন বায়ুসেনার অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান এফ-৩৫ লাইটনিং ২ এবং এফ-১৫ স্ট্রাইক ইগল ব্যবহার করা হয় এই হামলার জন্য। তবে মোট ক’টি যুদ্ধবিমান এই হামলায় অংশ নিয়েছিল, তা জানানো হয়নি। সেনার তরফে জানানো হয়েছে, যুদ্ধবিমানগুলি থেকে প্রায় ৮০ হাজার কেজি বোমা ফেলা হয়েছে। গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে দ্বীপের ওই সব গুহা, গর্তগুলিকে। প্রায় ৩৭টি টার্গেটে বোমা ফেলা হয়। তাতে মোট ২৫ জন জঙ্গি মারা গিয়েছে বলে জানিয়েছেন সিটিএসের মুখপাত্র সাবা আল-নুমান।

আরও পড়ুন : ৮১ নয় বয়স ৩২! ধরিয়ে দিল গায়ের রং

আরও পড়ুন : মেয়ের সঙ্গে রফির ‘তেরে মেরে প্যার কে…’ গাইলেন রানু মণ্ডল

আকাশ থেকে হামলার পর মার্কিন ও ইরাকি সেনারা পরিদর্শন করেন ওই দ্বীপ। উদ্ধার হয়প্রচুর অস্ত্র। তারমধ্যে রয়েছে রকেট প্রপেলেড গ্রেনেড লঞ্চার (আরপিজিএস), প্রচুর রকেট, আইইডি। দ্বীপটিকে এখন ঘিরে রেখেছে আইসিটিএসের জওয়ানরা। ইরাকের লেফটেন্যান্ট জেনারেল আল-সাদি জানিয়েছেন, হামলার আগে মার্কিন ড্রোন ব্যবহার করে গোপনে নজরদারি চালানো হয়। সেখানে দেখা গিয়েছে দ্বীপে কোনও সাধারণ মানুষ ছিলেন না। এটা নিশ্চিত হওয়ার পরই তাঁরা এয়ার স্ট্রাইক চালান।