গুজরাতের বিরুদ্ধে আজ, মঙ্গলবার বিজয় হজ়ারে ট্রফির ম্যাচ দিয়েই শুরু হচ্ছে বাংলার ক্রিকেট মরসুম। গত বার যে প্রতিযোগিতার গ্রুপ পর্বেই আটকে গিয়েছিল বাংলার রথ। এ বার জাতীয় ওয়ান ডে টুর্নামেন্ট জেতার স্বপ্ন নিয়েই নামছেন ঋদ্ধিমান সাহা, মনোজ তিওয়ারিরা। 

গত বারের দলের চেয়ে এ বারের অনেক তফাত। ফিটনেস মাপকাঠি বাড়িয়ে বাংলা দল অনেক তরতাজা। প্রস্তুতি ম্যাচেও তার প্রমাণ পেয়েছেন কোচ অরুণ লাল। গত বারের মতো ক্যাচ এ বার আর পড়ছে না। ফিল্ডিংয়ে রান ফস্কাচ্ছেন না ক্রিকেটারেরা। যা দেখে কোচ অরুণ লাল আশ্বস্ত, ‘‘এই পারফরম্যান্স থাকলে আমাদের আটকানো কঠিন। গত বারের চেয়ে এ বার আমাদের দলের ভারসাম্য খুব ভাল। ব্যাটিংয়ে মনোজ তিওয়ারি, অনুষ্টুপ (মজুমদার), সুদীপ (চট্টোপাধ্যায়), ঋদ্ধিমান (সাহা) রয়েছে। পেস বিভাগে অশোক ডিন্ডা, আকাশ দীপ, সায়ন ঘোষ থাকছে। আমাদের স্পিনারেরা প্রত্যেকেই ব্যাট করতে পারে। অর্ণব (নন্দী), শাহবাজ় (আহমেদ) ও কর্ণ (লাল) তিনজনেই অলরাউন্ডার। সেটা সব চেয়ে বড় সুবিধা।’’

সোমবার সকালে জয়পুরিয়া মাঠে অনুশীলন করেছে বাংলা। সেখানেই বাংলার ম্যাচ। অধিনায়ক সুদীপ চট্টোপাধ্যায় ও কোচ অরুণ লাল উইকেট দেখেছেন। তাঁদের মনে হয়েছে, এই উইকেটে স্পিনারেরা সে ভাবে সাহায্য পাবে না। তাই প্রচুর রান ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু হাল্কা ঘাসের উপস্থিতি সকালের দিকে পেসারদের সাহায্য করবে। তাই তিন পেসার ও দুই স্পিন-অলরাউন্ডার নিয়ে নামতে চলেছে বাংলা। ঈশান পোড়েল না থাকায় পেস বিভাগ সামলাবেন ডিন্ডা, আকাশ ও সায়ন। স্পিনারদের মধ্যে অর্ণব, শাহবাজ় ও কর্ণের মধ্যে যে কোনও দু’জন খেলবেন। ব্যাটিংয়ে ঋদ্ধিমান সাহাকে রাখা হবে মিডল অর্ডারেই। অভিষেক রামন ও শ্রীবৎস গোস্বামী ওপেন করবেন। তিনে সুদীপ, চার নম্বরে মনোজ। তার পরে পরিস্থিতি অনুযায়ী অনুষ্টুপ, ঋদ্ধিদের নামানো হবে। 

অরুণের কথায়, ‘‘ঋদ্ধিকে ওপেন করানোই যেত, কিন্তু এই উইকেটে পরের দিকে ওকে প্রয়োজন হবে। স্পিনাররা সাহায্য পাবে না। সেই পরিস্থিতি কাজে লাগানোর জন্য ঋদ্ধিকে পরে নামানো হবে।’’

জাতীয় ওয়ান ডে-র ফর্ম্যাট অনুযায়ী আট ম্যাচের মধ্যে ছ’টি জিততে পারলে কোয়ার্টার ফাইনালের রাস্তা পাকা করে ফেলবে বাংলা। তাই প্রথম ম্যাচ থেকেই আগ্রাসী ক্রিকেট খেলতে মরিয়া দল। গুজরাতও শক্তিশালী। পার্থিব পটেল, পীযূষ চাওলা, রুজুল ভট, চিন্তন গাজা, মনপ্রীত জুনেজাদের মতো তারকা রয়েছেন। অলরাউন্ডার অক্ষর পটেল দলকে নেতৃত্ব দেবেন। তাঁদের সামলাতে কতটা তৈরি দল? অধিনায়ক সুদীপ বলেন, ‘‘অন্যের খুঁত বার করার চেয়ে নিজেদের উন্নতির পথ খুঁজে বার করতেই বেশি পছন্দ করি। ভাল প্রস্তুতি হয়েছে, প্রত্যেকে আত্মবিশ্বাসী। এ বার দেখা যাক কী ভাবে আমরা এগোই।’’

অরুণ যদিও মনে করেন, প্রথম ম্যাচের উপরেই অনেকটা নির্ভর করছে আসন্ন মরসুমের পারফরম্যান্স। তাই শুরুটা কোনও ভাবেই হার দিয়ে করা যাবে না। কোচের কথায়, ‘‘এত দিনের পরিশ্রমের ফল আশা করি ছেলেরা পাবে। প্রথম ম্যাচ থেকেই তা পাওয়া উচিত। কারণ, পরিবেশের সঙ্গে আমরা আগেই মানিয়ে নিয়েছি। এখানেই প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছি। আশা করি, সেই প্রস্তুতি কাজে লাগবে।’’