• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

পাহাড়: সমাধানের খোঁজে কমিটি গঠন সাংসদের

1
সাংসদ রাজু বিস্তা। নিজস্ব চিত্র

দিল্লি হাতছাড়া হওয়ার দিনই বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ সুব্রহ্মণ্যম স্বামী টুইট করে দাবি তোলেন, বিজেপির প্রতিশ্রুতিমতো দার্জিলিংকে যেন কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করা হয়। তাঁকে সমর্থন করে মোর্চা সভাপতি বিনয় তামাং বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তার ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বারবার সরব হন। বৃহস্পতিবার শিলিগুড়িতে বিজেপির জেলা কার্যালয়ে নয়া ভবনের উদ্বোধনে এসে বিস্তা দাবি করেন, পাহাড়ে স্থায়ী রাজনৈতিক সমাধান এই পাঁচ বছরের মধ্যেই করা হবে। তবে স্থায়ী সমধানটা কী, তা নিয়ে অবশ্য স্পষ্ট করে তিনি কিছু বলেননি। বিজেপি সাংসদের বক্তব্য, ‘‘সবই আলোচনা সাপেক্ষে গ্রহণযোগ্য হবে।’’ 

এ দিন দুপুরে মাটিগাড়ার খাপরাইল মোড় লাগোয়া একটি হোটেলে পাহাড়ে বিজেপির সহযোগী দলগুলিকে নিয়ে একটি বৈঠক করেন রাজু বিস্তা। সেখানে সিদ্ধান্ত হয়েছে, স্থায়ী রাজনৈতিক সমাধানের দাবিতে একটি কমিটি গঠন করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করবে একটি ১৪টি দলের একটি কো-অর্ডিনেশন কমিটি। বৈঠকে ঠিক হয়েছে, পাহাড়ে বিজেপির সহযোগী দলগুলি তাদের দু’জন করে সদস্যের নাম দেবে। ২৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এই কমিটি গঠন করে পাহাড়ের স্থায়ী রাজনৈতিক সমাধানের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবিপত্র পেশ করা হবে। দার্জিলিঙের বিজেপি বিধায়ক নীরজ জিম্বা বলেন, ‘‘কাশ্মীর, নাগাল্যান্ড সব জায়গাতেই স্থায়ী রাজনৈতিক সমাধানের পথ বার হয়েছে। পাহাড়েও তার জন্য দীর্ঘদিন থেকে মুখিয়ে রয়েছেন মানুষ। তা আমরা কেন পাব না? বিজেপির প্রতিশ্রুতি দ্রুততার সঙ্গে পালনের জন্যই এই কমিটি।’’ 

এদিন বিজেপি ছাড়াও জিএনএলফের তরফে ওয়াই লামা, গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার (বিমলপন্থী) মুখপাত্র বিপি বজগাই এবং গোর্খা লিগের প্রধান প্রতাপ খাতির মতো নেতারা বৈঠকে ছিলেন। প্রতাপ খাতি বলেন, ‘‘আমরা এখনও পৃথক রাজ্যের দাবিতেই অনড় রয়েছি।’’ সাংসদ বিস্তা বলেন, ‘‘স্বামী অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ। তাঁর বক্তব্য সমর্থন করি। আমরা পাঁচ বছরের প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। তার মধ্যে স্থায়ী সমাধান করা হবে।’’ তিনি জানান, ১১টি জনগোষ্ঠীর অধিকার নিয়েও ঠিক সময়েই পদক্ষেপ করা হবে। 

বিনয়কে এদিন কৌশলী প্রস্তাবও দিয়েছেন বিজেপি সাংসদ। তিনি বলেন, ‘‘পৃথক রাজ্যের বিল রাজ্য বিধানসভায় পাশ করিয়ে আনুন বিনয় তামাংরা। বাকিটা বিজেপি বুঝে নেবে।’’ তবে তার পাল্টা জবাবও দিয়েছেন বিনয় তামাং। তিনি বলেন, ‘‘আমি তো আর বিধায়ক নই। দার্জিলিঙের বিধায়ক তো নীরজ জিম্বা। এই দাবি নীরজ জিম্বা কেন বিধানসভায় তুলছেন না?’’
 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন