ধীরে ধীরে ছন্দে ফেরার ইঙ্গিত কাঁকিনাড়াতে। ব্যারাকপুরের নতুন পুলিশ কমিশনার মনোজ বর্মা দায়িত্ব নেওয়ার পর গত ৭২ ঘণ্টায় নতুন করে কোনও হিংসার ঘটনা ঘটেনি গোটা এলাকায়।

পুলিশ কমিশনার মনোজ বর্মা জানিয়েছেন, ‘‘নির্দিষ্ট সূত্রের ভিত্তিতে হিংসার ঘটনায় ৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কাঁকিনাড়া ৬ নম্বর রেলওয়ে সাইডিং থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ৬০টি বিভিন্ন রকম তাজা দেশি বোমা।’’

বৃহস্পতিবার হিংসার ঘটনায় দু’জনের মৃত্যুর পর পুলিশের উপর এলাকার বাসিন্দাদের একাংশের যে ক্ষোভ তৈরি হয়েছিল তা-ও অনেকটাই এ দিন কম। কাছারি বাজারের সব দোকানপাট না খুললেও, পুলিশের নিরাপত্তার আশ্বাসে কয়েকটি দোকান খুলেছে এ দিন। পাশাপাশি এলাকার বন্ধ হয়ে থাকা স্কুল খুলতেও পুলিশ সক্রিয়। কমিশনার বলেন, ‘‘পুলিশের তরফে স্কুল এবং ব্যবসায়ী দু’পক্ষের সঙ্গেই আলোচনা হয়েছে। তাঁদের নিরাপত্তার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।’’

আরও পড়ুন: এই অবস্থা চলতে পারে না! এনসেফ্যালাইটিস নিয়ে ৭ দিনের মধ্যে বিহার সরকারের জবাব তলব সুপ্রিম কোর্টের​

এ দিন কয়েকটি স্কুল খুললেও পড়ুয়ার সংখ্যা নগন্য। তবে পুলিশের আশা ধীরে ধীরে সাহস ফিরে পাবেন পড়ুয়া এবং তাঁদের অভিভাবকেরা। একই ভাবে ব্যবসায়ীরাও দোকান খুলবেন। শুক্রবার দায়িত্ব নেওয়ার পরেই গভীর রাত পর্যন্ত এলাকার গলিতে গলিতে পায়ে হেঁটে টহল দেওয়া শুরু করেন পুলিশ কমিশনার নিজে। সেই দিন থেকে প্রতি দিন তিনি একই ভাবে দিনে অন্তত এক ঘণ্টা পায়ে হেঁটে টহল দিচ্ছেন। এলাকার মানুষের সঙ্গে কথা বলছেন এবং পুলিশের বিরুদ্ধেও তাঁদের যে ক্ষোভ তা তিনি শোনেন। এলাকার বাসিন্দারাই এ দিন স্বীকার করেন যে, কমিশনার নিজে সবার সঙ্গে কথা বলায় সাধারণ মানুষের সঙ্গে পুলিশের যে ভুল বোঝাবুঝি তৈরি হয়েছিল তা অনেকটাই দূর হয়েছে।

ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরছে কাঁকিনাড়া। —নিজস্ব চিত্র।

আরও পড়ুন: মেয়াদ শেষের আগেই ইস্তফা দিলেন রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ডেপুটি গভর্নর​

পুলিশ সূত্রে খবর, দায়িত্ব নেওয়ার পরই মনোজ বর্মা পুলিশের প্রতি এলাকার মানুষের ভরসা ফেরানোর উপর জোর দিয়েছিলেন। সেই সঙ্গে নির্দিষ্ট খবরের উপর ভিত্তি করে যারা সরাসরি গোলমালের সঙ্গে যুক্ত তাদের গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছিলেন। তিনি দায়িত্ব নেওয়ার তিন দিন পর আট জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে দাবি করা হয়েছে, এরা সবাই স্থানীয়। তবে এদের সবারই পুরনো অপরাধের ইতিহাস আছে। ধৃতদের মধ্যে দু’পক্ষের অপরাধীরাই রয়েছে। টানা পুলিশি তল্লাশির ফলে ফের গোলমাল পাকানোর সুযোগ পাচ্ছে না অপরাধীরা। ফলে সাধারণ বাসিন্দাদের থেকেও পুলিশ মজুত বোমা এবং অস্ত্রের ব্যাপারেও গুরুত্বপূর্ণ খবর পাচ্ছে।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।