ফের বেপরোয়া গতির বলি তিন যুবক। গুরুতর আহত হয়েছেন দু’জন। নিউটাউনের ইকো পার্কের কাছে দ্রুতগতিতে গাড়ি ঘোরাতে গিয়ে মেট্রোর পিলারে ধাক্কা মারে একটি হন্ডা সিটি গাড়ি। গতি বেশি ধাকায় ধাক্কা মারার পর গাড়িটি কার্যত উড়ে গিয়ে ‘সার্ভিস রোডে’ গিয়ে পড়ে। দু’পাশের দরজা দুমড়ে যায়। ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয় গাড়ির সামনের অংশটি। ভেঙে যায় কাচ। গ্যাস কাটার দিয়ে গাড়ির দরজা কেটে পাঁচ জনকে উদ্ধার করে নিউটাউন থানার পুলিশ।

দুর্ঘটনার পর নিউটাউন থানার পেট্রোলিং ভ্যানের পুলিশ কর্মীদের নজরে আসে বিষয়টি। তাঁরা দ্রুত ওই যুবকদের উদ্ধার করে জখম পাঁচ জনকেই সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসকেরা তিন জনকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

গাড়ির পিছনের আসনে ছিলেন নিশাত ঝাওয়ার, কৌশল ঝাওয়ার এবং মায়ঙ্ক ঝাওয়ার। ওই তিন জনের আঘাতই গুরুতর ছিল। পুলিশ সূত্রে খবর, ঘটনাস্থলেই ওই তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। গাড়ির চালকের আসনে ছিলেন মোহিত জৈন। তাঁর পাশের আসনে বসেছিলেন সর্বজিৎ সিংহ। গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁরা এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন: শহরে উল্টোল তীব্র গতির স্কুলবাস, আহত ২২

আরও পড়ুন: যথেচ্ছ প্লেটলেট ব্যবহার, সতর্ক করল স্বাস্থ্য ভবন

স্থানীয় সূ্ত্রে খবর, মঙ্গলবার ভোর পাঁচটা নাগাদ ইকোপার্কের কাছে একটি হোটেলের সামনে দুর্ঘটনাটি ঘটনাটি ঘটে। ওই জায়গায় গাড়িটি দ্রুতগতিতে ঘুরিয়ে এয়ারপোর্টের দিকে যাওয়ার সময় মেট্রোর পিলারে প্রচণ্ড গতিতে ধাক্কা মারেন চালক। তারা মদ্যপ অবস্থায় ছিলেন কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এ ভাবেই দুমড়েমুচড়ে গিয়েছে গাড়িটি। —নিজস্ব চিত্র।

গাড়িটি পরীক্ষা করে দেখছে নিউটাউন থানার পুলিশ এবং ফরেন্সিক দল। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, পিলারে ধাক্কা মারার পর গাড়িটি উড়ে গিয়ে সার্ভিস রোডে পড়ে। বাঁ দিকে এ ভাবে কেন গাড়িটি ঘোরাতে গিয়েছিলেন চালক, তা খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা। ফরেন্সিক দলের ধারণা, গাড়ির গতি ১০০ বা তারও বেশি ছিল। গাড়িটি পরীক্ষার পর তা আরও স্পষ্ট ভাবে বলা যাবে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, চালকের বিরুদ্ধে বেপরোয়া গাড়ি চালানো, গাফিলতির কারণে মৃত্যু সংক্রান্ত ধারায় মামলা করা হয়েছে।