বছর তিরিশ আগে ভারতে পড়তে এসে চরম আর্থিক সঙ্কটের মুখে পড়েছিলেন কেনিয়ার এমপি রিচার্ড টোঙ্গি। দেশে ফেরার সময়ে স্থানীয় মুদি দোকানের ২০০ টাকা ধার মেটাতে পারেননি। ঔরঙ্গাবাদের ওই মুদি দোকানি কাশীনাথ গাওলি অবশ্য রিচার্ডের পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন। কেনিয়ায় ফিরে দুর্দিনে পাশে থাকা মানুষটিকে ভোলেননি রিচার্ড। তাই ঋণ ফেরাতে ৩০ বছর পরে ভারতে এলেন তিনি। স্ত্রী মিশেলকে নিয়ে দেখা করলেন কাশীনাথের পরিবারের সঙ্গে। সোমবার ওই সাক্ষাতের সময়ে বারবার আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন দু’জনে। সেই ছবি ভাইরাল হয়েছে ফেসবুকে।  

বর্ষীয়ান কাশীনাথ বললেন, ‘‘সুদূর কেনিয়া থেকে ফোনটা পেয়ে বিশ্বাস করতে পারিনি।’’ ১৯৮৫-৮৯ সালের কথা। স্থানীয় কলেজে ম্যানেজমেন্ট পড়তে আসেন রিচার্ড। তাঁর কথায়, ‘‘ঔরঙ্গাবাদে পড়ার সময় অবস্থা খুবই খারাপ ছিল। তখন গাওলি কাকা ও তাঁর পরিবার আমায় সাহায্য করেন। তখনই ভেবেছিলাম, এক দিন ফিএই ঋণ শোধ করবই।’’ কেঁদে ফেলেন কাশীনাথও। রিচার্ড ও তাঁর স্ত্রীকে হোটেলে নিয়ে গিয়ে বিশেষ আতিথেয়তা দেখতা চাইলেও রিচার্ড কাশীনাথের বাড়িতেই ঘরোয়া ভাবে আতিথ্য গ্রহণ করেছেন। দেশে ফেরার আগে গাওলি কাকাকে কেনিয়া যাওয়ার আমন্ত্রণও জানিয়েছেন।