ছাগলের সঙ্গে যোগব্যায়ামের আয়োজন করে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম তুলতে চলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেফ্লোরিডার একটি খামার ‘গ্রেডি গোট ফার্ম’। এমনটাই দাবি করলেন খামারের মালিক দম্পতির। যদিও তাঁদের দাবি, রেকর্ড ইতিমধ্যেই তৈরি হয়েছে গিয়েছে। সব তথ্য খতিয়ে দেখে এখন অপেক্ষা শংসাপত্র পাওয়ার। শনিবার এই যোগাভ্যাসের আয়োজন করা হয়।

‘গোট যোগা’ হল ছাগলের সঙ্গে যোগ ব্যায়াম করার পদ্ধতি। ছাগলের সাধারণ প্রবৃত্তি হল একটু উঁচু জায়গায় উঠে দাঁড়ানোর। যখন যোগব্যায়ামের অংশগ্রহণকারীরা যোগাভ্যাস করবেন তখন তাঁদের আশেপাশেই ঘুরে বেড়াবে এই ছাগলগুলি। যোগাভ্যাস করার সময় যখনই তাঁরা এমন ভঙ্গিমায় আসবেন যখন ছাগলগুলির পক্ষে তাঁদের গায়ে ওঠা সম্ভব, তখন তাঁদের গায়ে উঠে পড়বে। আর এতে বিরক্তও হবেন না যোগব্যায়ামে অংশগ্রহণকারীরা।

গ্রেডি গোট ফার্ম শনিবার এই যোগব্যায়ামের আয়োজন করে। তবে এই আয়োজন তাদের আগে অন্যরাও করেছিল। তৈরি হয়েছিল গিনেস রেকর্ডও। ২৩ ফেব্রুয়ারি মার্কন যুক্তরাষ্ট্রেরইঅ্যারিজোনায় সেই রেকর্ড হয়। সেবার যৌথভাবে উদ্যোগী হয় ‘অ্যারিজোনা গোট যোগা’ ও ‘ভিজিট মেসা’ নামে দুই সংস্থা। এর মধ্যে ভিজিট মেসা হল পর্যটন তথ্য সরবরাহকারি একটি সংস্থা। তারা ৩৫১ জন অংশগ্রহণকারী ও ৮৪টি ছাগল নিয়ে এই রেকর্ড তৈরি করেছিল।

আরও পড়ুন : এনকাউন্টার স্পেশালিস্ট সেজে সাত মহিলাকে বিয়ে, অন্য ছয় মহিলার শ্লীলতাহানি

এবার সেই রেকর্ড ভাঙতে চলেছে গ্রেডি গোট ফার্ম। তবে এই ফার্ম শুধু রেকর্ড তৈরি করার জন্যই এই আয়োজন করছে না বলে দাবি করেছেন এর মালিক দম্পতি। তাঁদের একটি অন্য লক্ষ্যও রয়েছে। গ্লোবাল অফেনসিভ এগেনস্ট ট্র্যাফিকিং (গোটা)  নামে তাঁদের একটি সংস্থাও রয়েছে। এই সংস্থা,মানব পাচার ও শিশুদের উপর যৌন হেনস্থা আটকাতে কাজ করে। ‘গোটা’ এই ছাগলের সঙ্গে যোগব্যায়ামের আয়োজন থেকে যে অর্থ পাবে তা মানব পাচার ও শিশুদের উপর যৌন হেনস্থা রোধে কাজে লাগানো হবে।

আরও পড়ুন : মোটর ভেহিকল আইনে এবার গরুর গাড়িকে ধরানো হল জরিমানার রসিদ

আগের রেকর্ড ভাঙতে ‘গোটা’ এবার ৫০০ জন যোগব্যায়ামকারীকে আমন্ত্রণ জানায়। সেই সঙ্গে ১১৫টি ছাগল নিয়ে আসা হয়েছিল। এই রেকর্ড তৈরির প্রচেষ্টা ২০১৭ সালের এপ্রিল থেকে নিচ্ছিল ‘গোটা’। কিন্তু নানা কারণে তা সম্ভব হচ্ছিল না। তাদের দাবি এই শনিবার তাঁরা রেকর্ড তৈরি করে ফেলেছেন।

 

এই রেকর্ড তৈরি করতে গেলে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের কিছু মাপকাঠি রয়েছে। ছাগলের সঙ্গে যোগার রেকর্ড করার ক্ষেত্রে মাপকাঠিগুলি হল, মানুষ ও ছাগলের অনুপাত হতে হবে পাঁচের সঙ্গে এক। যোগাভ্যাসকারীদের বয়স ন্যূনতম ১৩ বছর হতে হবে। তাঁদের অন্তত আধ ঘণ্টা যোগাভ্যাস করতে হবে রেকর্ড তৈরি করতে গেলে। যোগাভ্যাসের পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকলেও চলবে। আর ছাগলগুলির বয়স যেন হয় অন্তত এক বছর। পুরো পর্বটির ভিডিয়ো রেকর্ডিং খতিয়ে দেখে শংসাপত্র দেবে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড।

আয়োজকদের দাবি সব মাপকাঠিতেই তাঁরা উতরে গিয়েছেন। ফলে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড তাঁদের ঝুলিতে আসা এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। গিনেসের এই সব ভিডিয়ো ও তথ্য খতিয়ে দেখতে প্রায় দু’সপ্তাহ সময় লাগে।