• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বইমেলায় বিক্ষোভের ঘটনায় গ্রেফতার ১, শ্লীলতাহানির অভিযোগে নিষ্ক্রিয় পুলিশ, দাবি এপিডিআরের

Book Fair
বিক্ষোভের দিন বইমেলায়। —ফাইল চিত্র।

বইমেলায় বিক্ষোভের ঘটনায় আজিজুর রহমান নামের এক যুবককে গ্রেফতার করল পুলিশ। নিউটাউনের নতুন পুকুর এলাকার বাসিন্দা আজিজুর ছাড়া আরও এক জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে দাবি করেছে  মানবাধিকার সংগঠন এপিডিআর। তাদের দাবি, মঙ্গলবার রাতে মোট দু’জনকে আটক করা হয়। কিন্তু বিধাননগর পুলিশ এই দাবি উড়িয়ে দেয়। এক জনকেই গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ), জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) এবং জাতীয় জনসংখ্যা পঞ্জি (এনপিআর)-র বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলাকালীন গত শনিবার ধুন্ধুমার বাধে বইমেলায়। বিজেপি সমর্থক এবং পুলিশ তাদের মারধর করেছেন বলে অভিযোগ করেন আন্দোলনকারীরা। আবার বোঝাতে গেলে বিক্ষোভকারীরা দুই পদস্থ পুলিশ আধিকারিক ও এক মহিলা আধিকারিককে হেনস্থা করে বলে পাল্টা অভিযোগ তোলে পুলিশও।

সেই ঘটনায় আজিজুরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশের দাবি, ওই দিন বিধাননগর উত্তর থানায় বিক্ষোভকারীরা যে গণ্ডগোল পাকিয়েছিল, থানা ভাঙচুর করেছিল এবং পুলিশকে মারধর করেছিল, সেই ঘটনায় যুক্ত ছিলেন আজিজুর। বুধবার বিধাননগর মহকুমা আদালতে তোলা হবে তাঁকে।

আরও পড়ুন: ক্যানসারে মৃত্যুর মুখে বাবা, তাই হাসপাতালেই বিয়ে সারলেন মেয়ে​

তবে আজিজুরের গ্রেফতারির খবর সামনে আসতেই এ দিন বিধাননগর উত্তর থানার বাইরে জমায়েত করেন বিভিন্ন সংগঠনের সদস্যরা। আজিজুরের মুক্তির দাবি জানান তাঁরা। এপিডিআরের সদস্য রঞ্জিত শূর বলেন, ‘‘বিক্ষোভের ঘটনায় আজিজুরকে গ্রেফতার করতে পেরেছে পুলিশ। অথচ বিজেপি সমর্থকদের হাতে ছাত্রীদের নিগ্রহ নিয়ে যে অভিযোগ জানিয়েছিলাম আমরা, এখনও পর্যন্ত সে ব্যাপারে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি।’’

আরও পড়ুন: আপ বিধায়কের কনভয়ে গুলি, হত ১, পুলিশ বলছে ‘ব্যক্তিগত শত্রুতা’​

সিএএ বিরোধী বিক্ষোভ নিয়ে এ বছর বইমেলায় দফায় দফায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে বইমেলায়। তবে গত শনিবার বিজেপি নেতা রাহুল সিংহ পৌঁছনোর পর বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে দলের সমর্থকদের গোলমাল চরমে পৌঁছয়। দু’পক্ষের মধ্যে ধস্তাধস্তি চলাকালীন বিজেপি সমর্থকরা আন্দোলনকারী ছাত্রীদের মধ্যে কয়েক জনের শ্লীলতাহানি করে বলেও অভিযোগ ওঠে।  খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় বিধাননগর পুলিশ। আন্দোলনকারী একাধিক পড়ুয়াকে আটক করা হয়। পড়ুয়াদের অভিযোগ, পুলিশবাহিনী এসে আচমকা বেধড়ক মারধর শুরু করে দেয়। মাটিতে ফেলেও মারা হয় কয়েকজনকে। এমনকি মহিলা পুলিশ ছাড়াই অনেক ছাত্রীকে আটক করা হয় বলে দাবি করেছেন অনেকে। যদিও পুলিশের দাবি, বিক্ষোভের নামে কন্ট্রোল রুমের সামনে উত্তেজনা তৈরি করা হয়। বিক্ষোভকারীদের বোঝাতে গেলে পুলিশকেও মারধর করা হয়।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন